চাকরি হবে মনের মত।

সত্যিকার অর্থে চাকরি মনের মতই হয়, যদি আপনারা মনের মত করে চাকরি খুজে নিতে বা তৈরী করে নিতে পারেন।


কি ভাবে মনের মত চাকরি খুজবেন?

১.প্রথমে দেখতে হবে চাকরিটা আপনারা কতটা প্রয়োজন! চাকরির প্রয়োজনীয়তার উপর আপনার ভালোলাগা কাজ করে।

২. আপনি আপনার দক্ষতার উপর কাজ পচ্ছেন কি না, আপনারা দক্ষার বাহিরে হলে কাজে মন বসবে না, চাকরিও ভালো লাগবে না। 

৩. কাজ শেষে আপনার পরিবারকে কতটুকু সময় দিতে পারবেন, তার উপর নির্ভর করবে আপনার চাকরিতে ভালোলাগা।

৪. চাকরিতে আপনার আসানুরুপ বেতন পাচ্ছেন কিনা!

এই সব বিষয়ের উপর পছন্দের চাকরি নির্ভর করে।


job motivational image


পছন্দের চাকরি অপছন্দ হওয়ার করণ! 


" পছন্দের মানুষ কিছু দিন পরে যেমন অপন্দের তালিকায় যায় " 

বা

" একটি মানুষকে পছন্দ করা সহজ কিন্তু ভালোবাসা সহজ নয় "

ঠিক তেমনি আপনার পছন্দের চাকরি ও কিছু দিন পরে অপছন্দের তালিকায় চলে যায়।

১. চাকরির শুরুতে আপানার চাকরি সম্পর্কে যতটুকু জানানো হয়েছে তত টুকুতে আপার চাকরিটি ভালো লাগে। কিন্তু দিন শেষে আপনি যখন তারদের অলিখিত নিয়োম গুলো জানবেন তখন আর তা পছন্দের তালিকায় থাকে না।

২. চাকরির প্রয়োজনীয়তা কমে গেলে। 

৩. সময়ের সাথে সাথে চাহিদার সাথে মিল রেখে উপার্জন দৃদ্ধি না পেলে।

৪. ভালো সহকর্মী না পেলে। 

৫. সর্বপরি ভালো ভস না পেলে।


চাকরির জন্য কি করবেন?কেন করবেন?কি ভাবে করবেন?


চাকরি নামক সোনার হরিণ !


 আমার কোম্পানি ভাল না !


If you have any doudts.Please let me know

Post a Comment (0)
Previous Post Next Post